যেভাবে আপনি খুব সহজেই ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স করতে পারবেন



বৈধভাবে যেকোনো ব্যবসা পরিচালনার জন্য ট্রেড লাইসেন্স করা বাধ্যতামূলক। সাধারণত সিটি কর্পোরেশন ও মেট্রোপলিটন এলাকার বাইরে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, উপজেলা বা জেলা পরিষদ থেকে ট্রেড লাইসেন্স প্রদান করা হয়ে থাকে। ব্যবসা ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্যে এটি ব্যবহারযোগ্য নয়। ব্যবসায়ীর প্রথম পরিচয় হলো ট্রেড লাইসেন্সকিন্ত এ ট্রেড লা
ইসেন্স করতে অনেকেই নানা ঝামেলা পোহায়ে থাকে

 এর কারণ হলো কীভাবে ট্রেড লাইসেন্স করতে হয়, সে সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকাআপনি এ ঝামেলা সহজেই এড়াতে সক্ষম হবেন,যদি এর সঠিক নিয়ম আপনার জানা থাকে। ব্যবসার জন্য ট্রেড লাইসেন্স করার নিয়মকানুন সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আমরা এ আর্টিকেলটি থেকে জানবো
    

কোথায় ট্রেড লাইসেন্স করা হয়?


ব্যবসার অবস্থান যদি সিটি কর্পোরেশন এলাকা যেমন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল ও গাজীপুরে হয় তাহলে আপনাকে সংশ্লিষ্ট সিটি কর্পোরেশন হতে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে। ব্যবসার অবস্থান কোন পৌরসভা এলাকায় হয়ে থাকে তাহলে ঐ এলাকার  পৌরসভা কর্তৃপক্ষ হতে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে। অন্যান্য ক্ষেত্রে স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষ যেমন, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ থেকে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এলাকায় পরিচালিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ট্রেড লাইসেন্স জারি করার পদ্ধতির আলোকে এ আর্টিকেলটিকে সাজানো হলো। অন্যান্য স্থানীয় সরকারেরও একই নিয়ম-কানুন। ঢাকায় করতে গেলে উত্তর সিটি করপোরেশনের পাঁচটি এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পাঁচটি অঞ্চল রয়েছে। আপনার প্রতিষ্ঠানটি যে অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত, ওই অঞ্চলের অফিস থেকেই লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে।


ট্রেড লাইসেন্সের জন্য সিটি করপোরেশনের দুই ধরনের ফরম রয়েছে। আপনি যে ধরনের ব্যবসা করছেন বা করতে ইচ্ছুক, তার ওপর ভিত্তি করে ফরম নিন। ফরম পূরণ করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও ছবি জমা দিয়ে মূল ট্রেড লাইসেন্স বই সংগ্রহ করুন। সিটি করপোরেশনের দ্বারা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে তদন্ত হতে পারে এবং এর প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট পরিমাণ লাইসেন্স ফি পরিশোধের মাধ্যমে লাইসেন্স দেয়া হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র


স্বত্বাধিকারীর তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
ভাড়ার রশিদ বা জায়গার মালিকানাধীনের প্রমাণপত্র।
জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।
ব্যাংক সল্ভেন্সি সার্টিফিকেট।
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনআরবি) থেকে নেয়া আয়কর নিবন্ধনের (TIN) সনদপত্র।
বোর্ড অব ইনভেস্টমেন্ট থেকে কাজের অনুমতি।
হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধের রশিদ।
ফায়ার সার্ভিস এবং সিভিল ডিফেন্স কর্তৃক লাইসেন্সের ফটোকপি (শিল্প কারখানার ক্ষেত্রে)।
 হালনাগাদকৃত হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধের রশিদ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।
মূলধন প্রমাণের প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি (লিমিটেড কোম্পানির ক্ষেত্রে মেমরেন্ডাম অব আর্টিকেলস্‌)।
অনাপত্তি সনদ (নতুন প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে)।
সিটি কর্পোরেশন/ পৌরসভা/ ইউনিয়ন পরিষদের নিয়ম ও আইন-কানুন বাধিত হয়ে চলার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপারের ঘোষণা।
অন্তর্ভুক্তি নিবন্ধন পত্র (প্রযোজ্য সাপেক্ষে)।
অংশীদারীত্বের চুক্তিপত্র (প্রযোজ্য সাপেক্ষে)।
সংযুক্ত সকল কাগজপত্র সত্যায়িত করুন। সেক্ষেত্রে প্রথম শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা বা ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কর্তৃক কাগজপত্রগুলো সত্যায়িত করে নিন।

 

ট্রেড লাইসেন্স করার ধাপসমূহ


ট্রেড লাইসেন্স করতে নিম্নোক্ত ধাপ সমূহ যথাযথ সমাপ্ত করুন     
 ১. ফরম সংগ্রহ করুন
 সংশ্লিষ্ট কার্যালয় থেকে ফরম সংগ্রহ করে তা যথাভাবে পূরণ করুন   
২. ওয়ার্ড কমিশনারের থেকে সনদ সংগ্রহ করুন
  ফর্মটি পূরণ করা হয়ে গেলে এর বৈধতা যাচাইয়ের জন্য স্থানীয় ওয়ার্ড কমিশনারের কাছে জমা দিয়ে তার কাছে থেকে সনদ সংগ্রহ করুন
৩. লাইসেন্স বই সংগ্রহ করুন  ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ জমা দিন
৫০ টাকা দিয়ে লাইসেন্স বই সংগ্রহ করে প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র একত্র করে আবেদনপত্রটি ডিসিসির স্থানীয় কার্যালয়ে জমা দিন।


 ৪. কর্তৃপক্ষের ভেরিফিকেশনের জন্য অপেক্ষা করুন
জমাকৃত ফর্মের ওপর ভিত্তি করে লাইসেন্সিং সুপারভাইজার পরিদর্শনের জন্য আসবেন এবং সংশ্লিষ্ট তথ্যগুলোর  সত্যতা যাচাই করবেন।
. ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করুন ও ফি জমা দিন
 লাইসেন্সিং সুপারভাইজারের পরিদর্শন শেষ হয়ে যাওয়ার পর লাইসেন্স নিয়ে যাওয়ার জন্য আপনাকে নোটিশ
পাঠাবেডিসিসি অফিস থেকে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করবেন এবং আপনাকে লাইসেন্সের ফি জমা দেওয়ার জন্য তারিখ জানিয়ে দিবে  লাইসেন্স ফি ব্যবসার ধরনের ওপর নির্ভর করে কমবেশি হতে পারে। এই ফি সংশ্লিষ্ট অফিসে রসিদের মাধ্যমে জমা দিন। লাইসেন্স ফি সর্বনিম্ন ২০০ থেকে সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারেআপনার জন্য ধার্যকৃত ফি জমা দিয়ে ট্রেড লাইসেন্স তৈরীর কাজ সমাপ্ত করুন  


 ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন প্রক্রিয়া


 লাইসেন্স নবায়ন একটি নিয়মিত প্রক্রিয়াট্রেড লাইসেন্স সাধারনত ১ বছর এর জন্য ইস্যু করা হয় । প্রতি বছর ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করতে হয়লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হওয়ার তিন মাসের মধ্যে আবেদন করতে হবে।  যে অফিস থেকে ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু করা হয়, সেখান থেকেই ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করা হয়। ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত আঞ্চলিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করুন। দায়িত্বপ্রাপ্ত আঞ্চলিক কর্মকর্তা নবায়নকৃত লাইসেন্স প্রদান করবেন এবং ফি জমা দেওয়ার জন্য বলবেন।লাইসেন্স নবায়ন ফি নতুন লাইসেন্স ফির সমান। ব্যাংকে ফি জমা দিলেই আপনার লাইসেন্স আবার নবায়ন হয়ে যাবে



 লাইসেন্স জারি করার প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে আনুমানিক ৩-৪ কার্যদিবস প্রয়োজন হয়। আর লাইসেন্স নবায়ন করার প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে আনুমানিক ১-২ কার্যদিবস প্রয়োজন হয়। তবে ব্যবসায়ের ধরনভেদে সময়ের তারতম্য হতে পারে। এসব পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি একজন স্বত্বাধিকারী হিসেবে নিজেই আপনার ব্যবসায়ের ট্রেড লাইসেন্সটি করে নিতে পারেন। এছাড়াও বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা ট্রেড লাইসেন্স করার বিষয়ে গাইড লাইন দিয়ে সাহযোগিতা করে থাকেন। তারা বাংলাদেশের ট্রেড লাইসেন্স আইন সম্পর্কিত বিষয়াদিতেও সহযোগিতা করে থাকে। এমন প্রক্রিয়ায় আপনি খুব সহজেই আপনার ব্যবসায়ের জন্য ট্রেড লাইসেন্সটি করে ফেলতে পারেন  

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.